Logo

বড়াইগ্রামে চেয়ারম্যান পদে ১৩ প্রার্থী ! নারী প্রার্থীদের কটুক্তির অভিযোগ ।

রিপোটার : / ৪৮ বার শেয়ার হয়েছে
প্রকাশিত : রবিবার, ৭ নভেম্বর, ২০২১

আগামী ১১ নভেম্বর নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে ৫টি চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে ৩ নারীসহ ১৩ প্রার্থী অংশ নিচ্ছেন। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত ৫জন, আ’লীগ বিদ্রোহী ৫ জনসহ স্বতন্ত্র ৬জন। এছাড়া জাতীয় পার্টি ও জাসদ থেকে ২ জন প্রার্থী রয়েছে।

প্রার্থীরা হলেন, নগর ইউনিয়নে নিলুফার ইয়াসমিন ডালু (আ’লীগ), সামসুজ্জোহা সাহেব (স্বতন্ত্র/বিদ্রোহী), নূপুর খাতুন (স্বতন্ত্র) ও আবু হাশেম ভান্ডারী (জাসদ), গোপালপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু বকর সিদ্দিক (আ’লীগ), আব্দুস ছালাম খান (স্বতন্ত্র/বিদ্রোহী), নাজমুল হক (জাতীয় পার্টি), চান্দাইয়ে শাহানাজ পারভীন (আ’লীগ), আনিসুর রহমান (স্বতন্ত্র/বিদ্রোহী), জোনাইলে তোজাম্মেল হক (আ’লীগ) ও আবুল কালাম আজাদ (স্বতন্ত্র/বিদ্রোহী), বড়াইগ্রামে মোমিন আলী (আ’লীগ) ও এস এম মাসুদ রানা মান্নান (স্বতন্ত্র/বিদ্রোহী)।

নির্বাচনকে ঘিরে দুই-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া প্রার্থীরা তাদের প্রচারণা চালাচ্ছেন নির্বিঘ্নে। তবে ভিন্ন ধরণের অভিযোগ রয়েছে নারী প্রার্থীদের। তাদের অভিযোগ প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীর লোকজনের দ্বারা তারা নানা ভাবে কটুক্তির শিকার হচ্ছেন।

জানা যায়, এই উপজেলার ইউপি নির্বাচন ইতিহাসে এই প্রথম সর্ব্বোচ্চ সংখ্যক ৩ নারী ‘চেয়ারম্যান’ পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। সামাজিক নেতৃত্বে ও দেশ উন্নয়নে নারীদের অংশগ্রহণের ক্ষেত্র তৈরির প্রমাণ মেলে তাদের এই অংশগ্রহণে।

নির্বাচনে অংশ নেওয়া নারীরা তাদের প্রচারণা চালাচ্ছেন ঠিকই তবে এ প্রচারণায়  প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীর নেতা-সমর্থকেরা তাদেরকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরণের কটুক্তি ও নিন্দাচার করছে বলেও অভিযোগ রয়েছে তাদের।

বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদ হল রুমে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত নির্বাচন সংক্রান্ত মতবিনিময় সভায় নগর ইউনিয়নের প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান নিলুফার ইয়াসমিন ডালু অভিযোগ করে বলেন, প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীর লোকজন তাকে ‘পরীমনি’ বলে কটুক্তি করছে।

অপরদিকে চান্দাইয়ের প্রার্থী শাহানাজ পারভীনকে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী হিসেবে তুলে ধরে নানাভাবে কুটুক্তি করছে প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীর লোকজন। এক্ষেত্রে কিছুটা ভালো পরিবেশে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন নগরের প্রকৃতই স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের নূপুর বেগম। তিনি ওই ইউনিয়নের রত্নাগর্ভা পুরস্কারের ভূষিত হাজেরা খাতুনের একমাত্র পুত্রবধূ।

নূপুর খাতুন জানান, আমি কোন দলের হয়ে নির্বাচন করছি না। স্বতন্ত্র হয়ে নির্বাচনে জয়ী হলে স্বতন্ত্র মানসিকতা নিয়ে মানুষের সেবা করবো। 

অপরদিকে নির্বাচনী প্রচারণার পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রাখতে বড়াইগ্রাম থানার ওসি নজরুল ইসলাম মৃধার নেতৃত্বে পুলিশ প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন। কোথাও কোন সহিংসার সম্ভাবনা দেখা দিলেই মুহুর্তেই থানা পুলিশের বিশেষ টীম হাজির হয়ে তাৎক্ষণিক সমস্যা সমাধান করে নির্বাচনী পরিবেশ পুনঃস্থাপন করছে। পুলিশের এই ভূমিকায় সাধারণ ভোটাররা স্বস্তি প্রকাশ করেছেন। তবে নারী প্রার্থীরা কটুক্তির শিকার হচ্ছেন এমন অভিযোগের আলোকে ওসি জানান, প্রমাণসহ থানায় অভিযোগ দায়ের করলে এ ব্যাপারে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।  

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা হাসিব বিন শাহাব জানান, সুষ্ঠ নির্বাচনী পরিবেশের মধ্য দিয়ে যাতে নির্বাচন সম্পন্ন হয় সে ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন মাঠে রয়েছে এবং প্রয়োজনীয় তদারকি করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন...

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০